শনিবার, জুন 22, 2024
হোমপশ্চিমবঙ্গপূর্ব বর্ধমানধস আরও বাড়বে কিনা, সেই আশঙ্কায় কালনার পালপাড়া

ধস আরও বাড়বে কিনা, সেই আশঙ্কায় কালনার পালপাড়া

কালনা শহরের ১০ নম্বর ওয়ার্ডের এই এলাকায় কিলোমিটার দেড়েক জুড়ে ফাটল দেখা দিয়েছে। প্রায় তিনশো ফুট এলাকা জুড়ে মাটি ধসে নদীতে মিশে গিয়েছে।

- Advertisement -

পোষ্ট বর্ধমান ওয়েবডেস্ক, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, কালনা: প্রায় দুই মাস আগে, কালনা শহরে ভাগীরথীর পাড়ে একটি বড় ফাটল দেখা দেয়। কিছু অংশে ধসও নামে। প্রশাসন দ্রুত মেরামতির আশ্বাস দিলেও এখনও পর্যন্ত কাজ শুরু হয়নি। এরই মধ্যে, রবিবার থেকে শুরু হওয়া দুর্যোগের কারণে আতঙ্ক আরও বেড়েছে।

- Advertisement -

কালনা শহরের ১০ নম্বর ওয়ার্ডে কিলোমিটার দেড়েক জুড়ে ফাটল রয়েছে। প্রায় তিনশো ফুট এলাকায় মাটি ধসে নদীতে মিশে গিয়েছে। এই এলাকায় একটি নদীঘাট ও কাছাকাছি বসতি রয়েছে। আজ এলাকায় গিয়ে দেখা গেল, এখনও মেরামতির কাজ শুরু হয়নি।

রেমাল ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে ঝড়বৃষ্টিতে ফাটল আরও বাড়বে কি না, এই আশঙ্কায় ভুগছেন এলাকাবাসী। স্থানীয় বাসিন্দা সুব্রত পাল জানান, মাস দু’য়েক ধরে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও কাজ শুরু হয়নি। দুর্যোগে ক্ষতি বাড়বে বলেই মনে হচ্ছে। অনেকের মনে বাড়ি ছাড়ার আতঙ্কও রয়েছে।

- Advertisement -

আর বাসিন্দা কুটি পাল বলেন, “ঘূর্ণিঝড় রেমাল নিয়ে প্রশাসন সতর্কতা প্রচার চালাচ্ছে। আমাদের চিন্তা আরও বেড়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যে ধসে বাড়ির কিছুটা অংশ নদীতে চলে গিয়েছে। আরও ক্ষতি হলে বাস গোটাতে হবে। দুর্যোগ যতক্ষণ না কাটছে আমাদের জেগে কাটাতে হবে।” পালপাড়ার বাসিন্দা ধীরেন পালেরও ক্ষোভ, “কেন যে এতদিন প্রশাসনিক কর্তারা কিছু করলেন না, বুঝতে পারলাম না।”

ওই ওয়ার্ডের পুর প্রতিনিধি অনিল বসুর দাবি, “ভাগীরথীর পাড় মেরামতি বড় কাজ। পুরসভা, মহকুমাশাসক-সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্তাদের নজরে বিষয়টি আনা হয়েছে”। উপ-পুরপ্রধান তপন পোড়েল বলেন, “দুর্যোগ মোকাবিলা জন্য পুরসভা একটি দল তৈরি করেছে। পালপাড়ার বিষয়টি জানা রয়েছে। লোকসভা ভোট চলায় আদর্শ আচরণবিধি রয়েছে। তাই এখনই কিছু বলা যাবে না।”

- Advertisement -
আরও পড়ুন
- Advertisment -

জনপ্রিয় খবর