Tuesday, May 21, 2024
Homeস্বাস্থ্যবর্ধমানে ডেঙ্গুরোধে শহরজুড়ে ছাড়া হলো গাপ্পি মাছ, বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরিত্যক্ত দ্রব্য...

বর্ধমানে ডেঙ্গুরোধে শহরজুড়ে ছাড়া হলো গাপ্পি মাছ, বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরিত্যক্ত দ্রব্য সংগ্রহ বর্ধমান পুরসভার

গত বছর কেবলমাত্র বর্ধমান পুর এলাকাতেই ১২৬ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এবছর এখনো পর্যন্ত মাত্র একজন আক্রান্ত হয়েছেন।

- Advertisement -

টিএসপি বাংলা ওয়েবডেস্ক: ফের গোটা রাজ্য জুড়ে ডেঙ্গু নিয়ে উৎকণ্ঠা বাড়তে শুরু করে দিল। আর সেই ডেঙ্গু মোকাবিলায় বর্ধমান পৌরসভা জোরদার অভিযান শুরু করলো। বুধবার গোটা রাজ্যের সঙ্গে বর্ধমান পৌরসভার পঁয়ত্রিশটি (৩৫) ওয়ার্ডের বিভিন্ন জলাশয় ও নিকাশি নালায় ছাড়া হল গাপ্পি মাছ

- Advertisement -

বর্ধমান পৌরসভার এক্সিকিউটিভ অফিসার দেব দুলাল পাত্র জানিয়েছেন এদিন তারা পুরসভার পঁয়ত্রিশটি (৩৫) ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় গাপ্পি মাছ ছেড়েছেন যাতে ডেঙ্গুর লার্ভা বিনষ্ট হতে পারে। তিনি জানিয়েছেন গত বছর কেবলমাত্র বর্ধমান পুর এলাকাতেই ১২৬ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এবছর এখনো পর্যন্ত মাত্র একজন আক্রান্ত হয়েছেন। এই সংখ্যাকে তারা আর বাড়তে দিতে চান না। তাই ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবরকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

img20230720012347
বর্ধমান পৌরসভার একটি নিকাশি নালায় ছাড়া হচ্ছে গাপ্পি মাছ।

তিনি জানিয়েছেন একদিকে যেমন বদ্ধ জলাশয় তথা ডেঙ্গুর লার্ভা যেখানে জন্মায়, বিশেষত গতবছর যে সমস্ত এলাকাগুলিতে চিহ্নিত করা হয়েছিল সেই সমস্ত এলাকাগুলিতে গাপ্পি মাছ ছাড়া হয়েছে। পাশাপাশি গোটা শহর জুড়ে নির্মলসাথী এবং নির্মলবন্ধু কর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরিত্যক্ত জিনিসপত্র, যেগুলিতে মশার লার্ভা জন্মায় সেগুলো সংগ্রহ করা শুরু করেছেন।

- Advertisement -

দেব দুলাল বাবু জানিয়েছে এই সমস্ত সংগৃহীত দ্রব্য গুলিকে তারা যথাস্থানে পাঠিয়ে দেবেন। তিনি আরও বলেন যে সর্বাত্মকভাবে তারা চেষ্টা করেছেন যাতে বর্ধমান পুর এলাকায় কোনভাবেই ডেঙ্গুর বাড়বাড়ন্ত না ঘটে।

- Advertisement -
Sk Sahiluddin
Sk Sahiluddinhttps://www.tspbangla.com/profile/usksahil
Sk Sahiluddin is a seasoned journalist and media professional with a passion for delivering accurate and impactful news coverage to a global audience. As the Editor of TSP Bangla, he plays a pivotal role in shaping the editorial direction and ensuring the highest journalistic standards are upheld.
আরও পড়ুন
- Advertisment -

জনপ্রিয় খবর