Monday, April 15, 2024
Homeক্রাইমচার বছর ধরে অনুপস্থিত অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী, বেহাল অবস্থা নিয়ে বর্ধমানে স্কুলের সামনে...

চার বছর ধরে অনুপস্থিত অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী, বেহাল অবস্থা নিয়ে বর্ধমানে স্কুলের সামনে বিক্ষোভ গ্ৰামবাসিদের

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিনিধি, বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর ২০২৩, পূর্ব বর্ধমান: বছরের পর বছর ধরে অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে আসছেন না দায়িত্বে থাকা দিদিমণি। সহায়িকারাই কোনরকমে শিশু ও মায়েদের জন্য রান্না করে খাবার দেওয়ার কাজ চালাচ্ছেন। ফলে প্রাক-প্রাইমারীর পঠন-পাঠন একপ্রকার শিকেয় উঠেছে। খাবারের মান নিয়েও বিস্তর অভিযোগ মায়েদের। নিম্ন মানের খাবার দেওয়া হচ্ছে গর্ভবতী মায়েদের। আর এইসমস্ত অভিযোগ কে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার পূর্ব বর্ধমানের রায়না ১ ব্লকের হিজলনা অঞ্চলের বাবরকপুর পূর্বপাড়া গ্রামের ২২৬ নম্বর আইসিডিএস কেন্দ্রে বিক্ষোভে সামিল হলেন এলাকার বাসিন্দারা। বিক্ষোভকারীদের মূল অভিযোগের তীর অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী দিয়া মন্ডলের বিরুদ্ধে।

- Advertisement -

দীর্ঘদিন পর অবশেষে দিয়া মন্ডল আজ খাদ্য সামগ্রী কেনার টাকা পয়সা দেওয়ার জন্য অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে এলে, তাকে আটকে রেখে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে স্থানীয় বাসিন্দারা। যদিও অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের দিদিমণি দিয়া মণ্ডল নিজের বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, বিগত তিন বছর ধরে তার সন্তান হওয়ার কারণে বিনা মাইনের ছুটিতে ছিলেন তিনি। বর্তমানে তার সন্তান অসুস্থ থাকার কারণে আসতে পারেননি ও বর্তমানে তিনি বিনা মাইনের ছুটিতে আছেন। যদিও অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের ওই শিক্ষিকার এই সমস্ত দাবি মেনে নিতে নারাজ স্থানীয়রা।

স্থানীয়দের দাবি অবিলম্বে এই শিক্ষিকা কে বরখাস্ত করে অন্য কোন শিক্ষিকাকে সেখানে নিয়োগ করার ব্যবস্থা করুক প্রশাসন।অন্যদিকে রায়না পঞ্চায়েত সমিতির নারী ও শিশু দপ্তরের কর্মাধ্যক্ষ কৃষ্ণা মাজি এদিন অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে বিক্ষোভের প্রসঙ্গে বলেন “গ্রামবাসীদের অনেকেই ফোন করে তাদের অভিযোগ জানিয়েছেন। দিনের পর দিন এইভাবে একজন শিক্ষিকার অনুপস্থিত থাকায় অচলবস্থা তৈরি হয়েছে কেন্দ্রে। খাবারের গুণগত মান নিয়েও অভিযোগ পেয়েছি। ব্লক প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত এব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

- Advertisement -
Sneha Biswas
Sneha Biswashttps://www.tspbangla.com/profile/snehabiswas/
Sneha Biswas is an incident journalist who focuses on local coverage West Bengal. She writes for TSP Bangla and her work has also appeared in Siliguri Journal.
আরও পড়ুন
- Advertisment -

জনপ্রিয় খবর